বিশ্বকাপে গোল্ডেন বুটের ইতিবৃত্ত

প্রকাশিত: ১২:০০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০২২

বিশ্বকাপে গোল্ডেন বুটের ইতিবৃত্ত

স্পোর্টস ডেস্ক : উরুগুয়ের মাটিতে ১৯৩০ সালে গড়ায় ফুটবল বিশ্বকাপের প্রথম আসর। এরপর গত ৯২ বছরে আয়োজিত হয়েছে আরও ২১টি বিশ্বসেরার লড়াই।

 

গ্রেটেস্ট শো অন আর্থখ্যাত এ ফুটবল মহাযজ্ঞের প্রতিটি আসরেই থাকে অসংখ্য পুরষ্কার ও সম্মাননা। গোল্ডেন বুট সেসব পুরষ্কারের মধ্যে অন্যতম একটি সম্মানজনক পুরষ্কার।

 

গোলের খেলা ফুটবলে গোলদাতাদের প্রতি ভক্ত-সমর্থকদের আগ্রহটা সবসময়ই থাকে বেশি। আর ফুটবল বিশ্বকাপে সেরা গোলদাতা হওয়ার বিষয়টি তো যেকোনো খেলোয়াড়ের কাছেও স্বপ্নের মতো। রীতি অনুযায়ী, প্রতিটি বিশ্বকাপের সেরা গোলদাতার হাতে ওঠে গোল্ডেন বুটের পুরষ্কার।

 

বিশ্বকাপের শুরু থেকেই সেরা গোলদাতার পুরষ্কার চালু থাকলেও নামটা ছিল না এমন। ১৯৮২ সালে স্পেন বিশ্বকাপ থেকে নাম ধরে সেরা গোলদাতার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। শুরুতে এটির প্রচলন শুরু হয় ‘গোল্ডেন শ্যু’ নামে। তখন আসরের দ্বিতীয় ও তৃতীয় সর্বোচ্চ স্কোরারকে সিলভার এবং ব্রোঞ্জ শ্যু পুরস্কার দেয়া হতো। ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা আসরে গোল্ডেন শ্যু’র নাম পাল্টে গোল্ডেন বুট রাখা হয়।

 

ফুটবল বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ডটা ফ্রান্সের জাস্ট ফন্টেইনের। ১৯৫৮ সালের সুইডেন বিশ্বকাপে ১৩টি গোল করে এ রেকর্ড গড়েন তিনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে গোল্ডেন বুট জেতার তালিকায় সবার চেয়ে এগিয়ে ব্রাজিলিয়ানরা। দেশটির মোট ৬ ফুটবলার জিতেছেন এই পুরস্কার। তবে ইতিহাসে কেউই এখন পর্যন্ত দুইবার গোল্ডেন বুট জেতার কীর্তি দেখাতে পারেনি।

 

১৯৬২ সালে চিলি বিশ্বকাপে ৬ জন ফুটবলার যৌথভাবে আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা হন। হাঙ্গেরির ফ্লোরিয়ান আলবার্ট, সোভিয়েত ইউনিয়নের ভ্যালেন্টিন ইভানোভ, ব্রাজিলের গারিঞ্চা, যুগোস্লাভিয়ার ড্রাজন জারকোভিচ ও চিলির লিওনেল সানচেজ সকলেই ৪টি করে গোল করেন।

 

বিশ্বকাপের ২১ আসরের সেরা গোলদাতাদের তালিকা-

 

১৯৩০বিশ্বকাপ (উরুগুয়ে): গুইলারমো স্টাবিলে (আর্জেন্টিনা) ৮ গোল
১৯৩৪ বিশ্বকাপ (ইতালি): অল্ড্রিচ নেয়েডলি (চেকোস্লোভাকিয়া) ৫ গোল
১৯৩৮ বিশ্বকাপ (ফ্রান্স): লিওনিডাস (ব্রাজিল) ৭ গোল
১৯৫০ বিশ্বকাপ (ব্রাজিল): আদেমির (ব্রাজিল) ৮ গোল
১৯৫৪ বিশ্বকাপ (সুইডেন) : জাস্ট ফন্টেইন (ফ্রান্স) ১৩ গোল
১৯৬২ বিশ্বকাপ ( চিলি) : ফ্লোরিয়ান আলবার্ট (হাঙ্গেরি), ভ্যালেন্টিন ইভানোভ (সোভিয়েত রাশিয়া), গারিঞ্চা এন্ড ভাভা (ব্রাজিল), ড্রাজান জারকোভিচ (যুগোস্লাভিয়া ক্রোয়েশিয়া), লিওনেল সানচেজ (চিলি) ৪ গোল
১৯৬৬ বিশ্বকাপ (ইংল্যান্ড) : ইউসেবিও (পর্তুগাল) ৯ গোল
১৯৭০ বিশ্বকাপ(মেক্সিকো) : জার্ড মুলার (জার্মানি) ১০ গোল
১৯৭৪ বিশ্বকাপ (পশ্চিম জার্মানি) : গ্রিগর্জ লাটো (পোল্যান্ড) ৭ গোল
১৯৭৮ বিশ্বকাপ (আর্জেন্টিনা) : মারিও কেম্পেস (আর্জেন্টিনা) ৬ গোল
১৯৮২ বিশ্বকাপ (স্পেন) : পাওলো রোসি (ইতালি) ৬ গোল
১৯৮৬ বিশ্বকাপ (মেক্সিকো) : গ্যারি লিনেকার (ইংল্যান্ড) ৬ গোল
১৯৯০ বিশ্বকাপ (ইতালি) : সালভাতোরে শিলাচি (ইতালি) ৬ গোল
১৯৯৪ বিশ্বকাপ (যুক্তরাষ্ট্র) : ওলেগ সেলেঙ্কো (রাশিয়া), রিস্টো স্টোয়েচকভ (বুলগেরিয়া) ৬ গোল
১৯৯৮ বিশ্বকাপ (ফ্রান্স) : ডেভর সুকার (ক্রোয়েশিয়া) ৬ গোল
২০০২ বিশ্বকাপ (দক্ষিণ কোরিয়াও জাপান) : রোনাল্ডো নাজারিও (ব্রাজিল) ৮ গোল
২০০৬ বিশ্বকাপ (জার্মানি) : মিরোস্লাভ ক্লোসা (জার্মানি) ৫ গোল
২০১০ বিশ্বকাপ (দক্ষিণ আফ্রিকা) : থমাস মুলার (জার্মানি) ৫ গোল
২০১৪ বিশ্বকাপ (ব্রাজিল) : হামেস রদ্রিগেজ (কলম্বিয়া) ৬ গোল
২০১৮ বিশ্বকাপ (রাশিয়া) : হ্যারি কেইন (ইংল্যান্ড) ৬ গোল