বঙ্গবন্ধু ইনোভেশন গ্র্যান্ট : সেরা ৫২ স্টার্টআপ পেলো ৭ কোটি টাকা

প্রকাশিত: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৮, ২০২৩

বঙ্গবন্ধু ইনোভেশন গ্র্যান্ট : সেরা ৫২ স্টার্টআপ পেলো ৭ কোটি টাকা

অনলাইন ডেস্ক : বঙ্গবন্ধু ইনোভেশন গ্র্যান্ট (বিগ)- ২০২৩ এর সেরাদের সেরা স্টার্টআপ হিসেবে যৌথ বিজয়ী হয়েছে ‘ফ্যাব্রিক লাগবে লিমিটেড’ এবং ‘মার্কোপলো এআই। ওয়ান বিগ উইনার ২০২৩ হিসেবে এ যৌথ বিজয়ীর প্রত্যেককে এক কোটি টাকা করে দেওয়া হয়।

 

এছাড়া সেরা ৫০টি স্টার্টআপের প্রত্যেকেই ১০ লাখ টাকা করে মোট পাঁচ কোটি টাকার অনুদান পায়। অর্থাৎ সেরা ৫২টি স্টার্টআপকে মোট সাত কোটি টাকা অনুদান দেওয়া হয়েছে।

বিগ ২০২৩ এর গ্র্যান্ড ফিনালে শনিবার (১৭ জুন) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় তিন ঘণ্টার জাঁকালো একটি অ্যাওয়ার্ড বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় এবারের আসর।

 

তরুণ উদ্যোক্তা অর্থাৎ স্টার্টআপদের অনুপ্রাণিত করতে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) অধীনে ‘উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমি প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প (আইডিয়া)’ তৃতীয় বারের মতো আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু ইনোভেশন গ্র্যান্ট (বিগ)। এ আয়োজনের অন্যতম লক্ষ্য হলো তরুণ উদ্যোক্তা অর্থাৎ স্টার্টআপদের উদ্ভাবনী ধারণাকে উৎসাহিত করে দেশে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে তোলা। ডেয়ার টু স্ট্যান্ড বিগ- স্লোগানটি নিয়ে আয়োজিত বিগ-২০২৩ এর সারা দেশে ক্যাম্পেইন শেষে প্রাথমিক পর্যায়ে ছয় হাজার ৮৪৬টি স্টার্টআপ ও উদ্ভাবক এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করে।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান।

 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব মো. সামসুল আরেফিন।

 

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এর নির্বাহী পরিচালক রণজিৎ কুমার এবং স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সামি আহমেদ।

 

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইডিয়া প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ম সচিব মো. আলতাফ হোসেন।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সালমান ফজলুর রহমান বলেন, অনেকেই ভেবেছিলেন যে ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত হওয়া সম্ভব না। কিন্তু আমরা সেটা সম্ভব করেছি। বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে আমরা কীভাবে পৌঁছে যাবো সেটা নিয়ে কাজ করছি। সরকারের কাজ হলো অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে দেওয়া আর বেসরকারি খাতকে সুযোগ দিয়ে দেওয়া। অনুকূল পরিবেশ পেলে আমরা পারি।

 

তিনি বলেন, ফ্রিল্যান্সারদের জন্যে আইডি কার্ড এর ব্যবস্থা করা হয়েছে যার মাধ্যমে ব্যাংক লোন সুবিধাসহ বিভিন্ন সুযোগ গ্রহণ করতে পারছেন তারা।

 

সভাপতির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, সবার সম্মিলিত চেষ্টার ফসল হলো ডিজিটাল বাংলাদেশ। আমরা ২০১৫ সালের শুরু থেকে ১০ বছরে প্রায় ৪০০ স্টার্টআপ আইডিয়া প্রকল্প থেকে ফান্ড করেছিলাম। এর থেকে প্রায় ৩০ শতাংশ স্টার্টআপ এখনও বেঁচে আছে ও লড়াই করে টিকে আছে। তাদের মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ স্টার্টআপ প্রি-সিড এবং গ্রোথ পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে।

 

তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য তিনটি। সেগুলো হচ্ছে ইনোভেশন ইকোসিস্টেম, উদ্যোক্তা সাপ্লাই চেইন তৈরি করা এবং স্টার্টআপ কালচার ডেভেলপ করা। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে আমরা স্টার্টআপ পলিসি চূড়ান্ত করতে যাচ্ছি। আমাদের লক্ষ্য ২০২৫ সালের মধ্যে আরও পাঁচটি বিলিয়ন ডলার কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করার পাশাপাশি স্টার্টআপ খাতের ৩০ লাখ তরুণ তরুণীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা।

 

বিগ-২০২৩ এ প্রাথমিকভাবে ছয়টি স্ক্রিনিং টিম গঠন করে নিবন্ধিত স্টার্টআপদের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই শেষে ২২৪টি স্টার্টআপকে অনলাইন পিচিং রাউন্ডের জন্য নির্বাচন করা হয়। অবশেষে পাঁচটি প্যানেলে অনলাইন পিচিং রাউন্ড শেষে মোট ১০৩টি স্টার্টআপ যশোরে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে অনুষ্ঠিত বিগের তিন দিনব্যাপী বুটক্যাম্পে গত ৯ থেকে ১১ জুন অংশ নেয়। পরে পাঁচটি প্যানেলের জাজিং রাউন্ড শেষে পাওয়া যায় ৫২টি সেরা স্টার্টআপ।

 

সবশেষে, যৌথ বিজয়ী ওয়ান বিগ উইনার ২০২৩-সহ অন্যান্য বিজয়ী স্টার্টআপদের সম্মাননা দেওয়াসহ তাদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়। যৌথ বিজয়ীদের ফ্যাব্রিক লাগবে লিমিটেড থেকে ফাউন্ডার ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম ও কো-ফাউন্ডার রাজিয়া সুলতান এবং মার্কোপলো এআই থেকে ফাউন্ডার তাসফিয়া তাসবিন ও রুবাইয়্যাত ফারহানকে ক্রেস্ট ও সনদ দেওয়া হয়।

 

বিগ-২০২১ এর সঙ্গে পার্টনার হিসেবে সংযুক্ত ছিল সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ, এটুআই, এনহেনসিং ডিজিটাল গভার্নমেন্ট অ্যান্ড ইকোনোমি (ইডিজিই) প্রকল্প এবং ডিজিটাল উদ্যোক্তা এবং উদ্ভাবন ইকোসিস্টেম উন্নয়ন প্রকল্প।

 

ফ্যাব্রিক লাগবে লিমিটেড এবং মার্কোপলো এআই (মার্কেটিয়ার এআই লি.) ছাড়া বাকি সেরা ৫০টি স্টার্টআপ হলো: এগ্রিস্মার্ট, অ্যান্ট স্যুট, অ্যাকোয়ালিংক বাংলাদেশ লিমিটেড, আয়করি ডিজিটাল লিমিটেড, বাংলা ইস্কুল বিডি লিমিটেড, বাজার৩৬৫ লিমিটেড, কার্ডিকেয়ার, ছাদ বাজার, চেকবক্স, দেশিফার্মার লিমিটেড, ডিগারমা, ডকটাইম লিমিটেড, ড্রিপ ইরিগেশন বিডি লিমিটেড, ই-ইরিগেশন, ই-ওস্তাদ, ইজি গো, এডু অ্যাসিস্ট- দ্য ফিউচার অব ইনক্লিউসিভ এডুকেশন, এনগেজ, ইপল্লি, ফার্মহাউস বিডি, জি-উইজেটস স্মার্ট এনার্জি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এসইএমএস), গ্রামশপ, হিশাবি টেকনোলজিস লিমিটেড, ইনকাম, ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস, জেআরসি বোর্ড, কৃষি স্বপ্ন, লাইল্যাক, ম্যাভেরিক ইনোভেশন, মিমবা, মমিকিডস লিমিটেড, মোর টেক বিডি, নিরাময় হেলথটেক, রোবট্রি বাংলাদেশ, রিওগ্যাস, স্বাস্থ্য সেবা, শালবৃক্ষ লিমিটেড, সম্ভব, সঠিক এআই, সক্রিয় টেকনোলজিস লিমিটেড, সোল শেয়ার- সোল মবিলিটি, স্টাফবেস লিমিটেড, টেকরেভ ৪.০- স্মার্ট ফ্যাক্টরি (টেকনোভাস লিমিটেড), টয়লেন্ড, টয়ো, ভিআর বাংলা, ওয়ান্ডার ওম্যান, ওয়েস্ট বাংলাদেশ, ইয়োর ক্যাম্পাস এবং যায়ন্যাক্স হেলথ লিমিটেড।