সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম

প্রকাশিত: ১২:১৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২৩

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম

সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি : রাতের বেলা বসতঘরে ঢুকে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করেছে এক যুবক। গুরুতর আহত ওই স্বামী-স্ত্রীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী স্ত্রীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিবেশী আতাউর রহমান নামে এক ব্যক্তি। সে মানসিক প্রতিবন্ধী বলে জানা গেছে।

 

শনিবার ভোরে উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

 

আহতরা হলেন- কামালপুর গ্রামের নাসির উদ্দিন ও তার স্ত্রী শাবানা। আহতদের তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

আহত নাসির উদ্দিনের ভাবী নবিছা জানান, ৪/৫ দিন আগে নলকূপ থেকে শাবানা পানি আনতে গেলে আতাউর তার শাবানাকে গালাগালি ও মারধর করে। এ ঘটনায় নাসির উদ্দিন শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নে বিচার দেয়। তাদের ধারনা এ ঘটনায় তারা পরিষদে বিচার কেন দিল এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আতাউর দা দিয়ে কুপিয়ে নাসির ও তার স্ত্রী শাবানাকে গুরুতর আহত করে।

 

প্রতিবেশী মন্দিয়াতা গ্রামের বাসিন্দা, মন্দিয়াতা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সানজু মিয়া জানান, কামালপুর গ্রামের অনেকেই তাঁকে বলেছে ৩/৪ দিন ধরেই আতাউর নাসির উদ্দিনকে মারার পরিকল্পনা করছিল। এমন খবর শুনে পারত পক্ষে বাড়ি থেকেই বের হতেন না নাসির।

 

এ ঘটনায় আতাউর রহমানকে তাহিরপুর থানায় নিয়ে আসে তরং গ্রামের মতিউর রহমান জানান, ঘটনার পর আতাউর বড়দল দক্ষিণ ইউনিয়নের কাউকান্দি গ্রামে সে চলে আসে। শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলী হায়দারের নির্দেশে আতাউর রহমানকে থানায় নিয়ে আসা হয়।

 

এব্যাপারে থানার ওসি সৈয়দ ইফতেখার হোসেন জানান, আতাউর রহমান প্রায়ই তাঁর ফোনে কথা বলতো। কি বলতো তিনি ফোনে বুঝতে পারতেন না। তবে মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত হওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে কোন আইনি পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব নয়।

কম খরচে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিন

কম খরচে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিন