Home / রাজনীতি

রাজনীতি

বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটি ঘোষণা

 

বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে, রবিবার এ নতুন কমিটির তালিকা প্রকাশিত হয়।

বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সেলিমুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা এবং এডভোকেট লায়েকু্জ্জামান মোল্লার স্বাক্ষরিত পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেন।

বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কমিটির সভাপতি মোঃ মাহবুবুর রহমান অশ্রু সহ ১১ জন এবং সাধারণ সম্পাদক মোঃ হৃদয় আহাম্মেদ,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ৫ জন,সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছে ৬ জন,দপ্তর সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,প্রচার সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,আইন সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,সাংস্কৃতিক সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,সমাজসেবা সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,ছাএী বিষয়ক সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন,ক্রিয়া সম্পাদকে রয়েছে ৩ জন এবং সকল সদস্যদের নিয়ে কমিটি ঘোষিত হয়।

 

 

ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে শুরু

অনলাইন ডেস্ক : সদ্য সমাপ্ত ত্রিদেশীয় সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার বিকেল ৫টার একটু পর জাপান, সৌদি আরব এবং ফিনল্যান্ড সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করছেন তিনি।

সবাদ সম্মেলনের শুরুতেই সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঈদের সময় দেশে না থাকায় দেরিতে তিনি সবাইকে এই শুভেচ্ছা জানালেন।

বিদেশ সফর শেষ করে দেশে ফিরেই প্রতিবারই সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবার সফর থেকে ফিরে পরদিনই সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর দুই পাশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম উপস্থিত ছিলেন।

গত ২৮ মে জাপান দিয়ে ত্রিদেশীয় এই সফর শুরু করেন শেখ হাসিনা। পরে সেখান থেকে সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড যান তিনি। সফরে তৃতীয় ও শেষ দেশ ফিনল্যান্ড থেকে শনিবার (৮ জুন) সকালে দেশে পৌঁছান তিনি।

ত্রিদেশীয় এই সফরের শুরুতেই জাপানের টোকিওতে ‘দ্য ফিউচার অব এশিয়া’ সম্মেলনে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সফরে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন তিনি। বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য জাপানের সঙ্গে আড়াইশ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তা চুক্তি সই হয় তার সফরে।

জাপান সফর শেষে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কনফারেন্সের (ওআইসি) চতুর্দশ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে ৩০ মে শেখ হাসিনা সৌদি আরবে যান। সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পর পবিত্র ওমরাহ পালন করেন তিনি, জিয়ারত করেন মহানবীর (স.)-এর রওজা।

সৌদি আরব থেকে গত ৩ জুন ফিনল্যান্ড যাত্রা করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ৪ জুন দেশটির প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্তোর সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। পরদিন ৫ ‍জুন অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ ও ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগ তার সম্মানে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী সেই অনুষ্ঠানেও যোগ দেন।

রোহিঙ্গাদের ফেরাতে কার্যকর পদক্ষেপ নিন, ওআইসি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্কঃ মিয়ানমার থেকে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে মুসলিম দেশগুলোকে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় ইসলামী দেশগুলোর জোট ওআইসির ১৪তম শীর্ষ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যে এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সঙ্গে ইসলামের কোনও সম্পর্ক নেই। সন্ত্রাসবাদ বন্ধে মুসলিম দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
একই সঙ্গে একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ওআইসিকে ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।

ফিলিস্তিন ইস্যুকে কেন্দ্র করেই ওআইসির জন্ম উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এ সংকট আজও বিদ্যমান। বিভেদ ভুলে ভ্রাতৃত্বের চর্চাতেই উম্মাহর সমৃদ্ধি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আওয়ামী লীগে দূষিত কোনো রক্ত রাখা হবে না

অনলাইন ডেস্কঃ আওয়ামী লীগে দূষিত কোনো রক্ত রাখা হবে না উল্লেখ করে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ১৪ দলীয় জোটের প্রধান সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আগামী কাউন্সিলে এজন্য ৮টি টিম করা হয়েছে। তারা সারাদেশে সার্ভে করে আওয়ামী লীগের দূষিত রক্ত খুঁজে বের করবে।

তিনি বলেন, যেকোনো অশুভশক্তি দলের ভেতরে বা বাইরে যেখানেই থাকুক তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

শুক্রবার ৩১ মে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স হলে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বর্তমান বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভা, ইফতার ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. আসাদুজ্জামান দুর্জয় এ সভার সভাপতিত্ব করেন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পন্টু, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান খান, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুন অর রশিদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হক সবুজ, বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের উপদেষ্টা সৈয়দা রোকেয়া বেগম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার প্রমুখ।

আলোচনা সভায় সঞ্চালনা করেন আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সাধারণ সম্পাদক মুন্সী এবাদুল ইসলাম। সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ।

মোদির শপথে এলাহি আয়োজন, মন্ত্রী কারা, জল্পনা তুঙ্গে

অনলাইন ডেস্কঃ দ্বিতীয়বারের জন্য সরকার গড়তে চলেছেন নরেন্দ্র মোদি। রাষ্ট্রপতিভবনে চলছে এলাহি আয়োজন। একক গরিষ্ঠতা নিয়ে পরপর দুবার কোনও প্রধানমন্ত্রী লোকসভা ভোটে জয়ী হয়ে সরকার গড়েছিলেন ৪৮ বছর আগে। ইন্দিরা গান্ধী ১৯৬৭ এবং ১৯৭১ সালে পরপর দু’বার একক গরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করেন। ১৯৭৭ সালে সেই তিনিই শোচনীয়ভাবে বিপর্যস্ত হন জরুরি অবস্থার জেরে। ১৯৭১ সালের পর আবার সেরকমই বিপুল গরিষ্ঠতা নিয়ে এসে পরপর দুবার সরকার গড়ছেন নরেন্দ্র মোদি। শুরু হচ্ছে তাঁর দ্বিতীয় ইনিংস। মনমোহন সিং পরপর দু’বার প্রধানমন্ত্রী হলেও কংগ্রেসের কাছে একক গরিষ্ঠতা ছিল না। ইউপিএ ছিল জোট সরকার। মোদি কার্যত গোটা দেশের তাবৎ বিরোধীদের ধূলিস্যাৎ করে জয়ের পাহাড়ে আরোহণ করেছেন। আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টায় রাষ্ট্রপতি ভবনের প্রাঙ্গণে আয়োজিত হবে শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদির শপথগ্রহণের পাশাপাশি কালই শপথ নেবেন বাছা‌ই করা মন্ত্রীরাও। এবার মন্ত্রিসভায় সবথেকে বড় যাঁর অভাব অনুভূত হবে তিনি হলেন অরুণ জেটলি। কিডনিজনিত অসুস্থতার কারণে জেটলি প্রথম মোদি সরকারের আমলেই অসুস্থ হয়েছিলেন। আজ শপথ অনুষ্ঠানের প্রাক্কালে জেটলি চিঠি লিখে প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছেন তাঁর পক্ষে এবার মন্ত্রিসভার সদস্য হওয়া সম্ভব নয়। জেটলির অনুপস্থিতি শুধুই যে মন্ত্রক চালানোর ক্ষেত্রে সমস্যা নিয়ে আসবে তাই নয়, মোদি-অমিত শাহের বিজেপিতে একমাত্র লিবারাল, আধুনিক ও সর্বজনগ্রাহ্য মুখ ছিলেন জেটলি। একমাত্র তিনিই প্রত্যক্ষভাবে আরএসএসের স্বয়ংসেবক নয়। বরং তাঁর মাধ্যমেই বিজেপির রক্ষণশীল অংশের সঙ্গে উদার অর্থনীতির বহির্জগতের যোগসূত্র রক্ষিত হয়েছে।

এবার সেই মুখ বিজেপি ও সরকারে আর থাকছে না। জেটলি ছাড়াও সুষমা স্বরাজ এবার থাকবেন কিনা তাও স্পষ্ট নয়। কারণ তিনিও অসুস্থ। মোদির দ্বিতীয় পর্বের মন্ত্রিসভায় অনেক বেশি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবকদেরই প্রাধান্য থাকতে চলেছে। মোদি-অমিত শাহ তো বটেই, প্রকাশ জাভরেকর, নীতীন গাদকারি, জগৎপ্রকাশ নাড্ডা, রাজনাথ সিংরা প্রত্যেকেই সঙ্ঘের আদর্শে উঠে এসেছেন। ২০১৪ সালে মোদির শপথ অনুষ্ঠানে মোদির নীতি ছিল প্রতিবেশি রাষ্ট্রগুলিকে ইতিবাচক এক মিত্রতার বার্তা দেওয়া। তাই সেবার আহ্বান করা হয়েছিল সার্ক গোষ্ঠীর রাষ্ট্রনায়কদের। আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফও। কিন্তু গত পাঁচ বছরে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে।

এবার লোকসভা ভোটের প্রাক্কালে পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলা এবং তৎপরবর্তী বালাকোটে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বস্তুত মোদিকে বিপুলভাবে জনপ্রিয় করেছে ভোটের প্রচারে। সেই রেশ ধরেই এবার শপথ অনুষ্ঠানে ডাক পাননি ইমরান খান। পরিবর্তে এবার মোদির ফোকাস বিমস্টেক রাষ্ট্রগুলি (বে অফ বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টি টেকনিক্যাল অ্যাণ্ড ইকনমিক কোঅপারেশন)। লক্ষ্যণীয়ভাবে এই গোষ্ঠীর অন্তর্গত দেশগুলি সার্কে থাকলেও এই বিমস্টেকে পাকিস্তান নেই। রয়েছে বাংলাদেশ, ভারত, থাইল্যাণ্ড, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, নেপাল, ভূটান। এর পাশাপাশি মরিশাস ও কিরঘিজস্তানের রাষ্ট্রপ্রধানদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিরঘিজস্তানের প্রেসিডেন্টকে এবার বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার কারণ সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানা‌ইজেশনের সদর দপ্তর সেখানেই। আর শপথগ্রহণের পর নরেন্দ্র মোদির পরবর্তী প্রথম বিদেশ সফর সাংহাই কোঅপারেশনের সম্মেলনেই। সেখানে থাকবেন ইমরান খানও। তাঁকে শপথ অনুষ্ঠানে না ডেকে মোদি কঠোর অবস্থানের বার্তাই দিয়েছেন। বিদেশের মাটিতে কি দ্বিপাক্ষিক কোনও বৈঠকের সম্ভাবনা আছে? বিদেশমন্ত্রক উচ্চবাচ্য করেনি। মোদির আগামী মন্ত্রিসভাকে ঘিরে সবথেকে বড় যে আগ্রহ তৈরি হয়েছে সেটি হল অমিত শাহ কি মন্ত্রী হবেন? হলে তাঁকে বিজেপি সভাপতির পদ ছেড়ে দিতে হবে। সেক্ষেত্রে নতুন বিজেপি সভাপতি কে হবেন? নাকি অমিত শাহ তাঁর স্বপ্নপূরণ না হওয়া পর্যন্ত সভাপতি পদেই থেকে যাবেন? কী স্বপ্ন? অমিত শাহ নিজেই বহুবার বলেছেন। বাংলা দখল!

যথাযথ মর্যাদার সহিত পালিত হল মহানগর ল’ কলেজে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ।

মোঃ বেলাল হোসেনঃ জমকালো ভাবে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ,গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ১৭ মে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদ মহানগর ল’ কলেজ শাখার আলোচনা সভা, ইফতার ও দোয়া মাহফিল।

আলেচনা সভার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠিতা সভাপতি এডভোকেট লায়েকুজ্জামান মোল্লা, বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের কেন্দীয় সভাপতি সেলিমুর রহমান , বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের কেন্দীয় সাধারন সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা এছাড়া ও বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের নেতৃবৃন্দ ।
এ সময় অনুষ্ঠানের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন , খলিল উদ্দিন ফরিদ, সভাপতি মহানগর ল’ কলেজ শাখা, অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মোঃ রিয়াজ উদ্দিন খান,সাধারন সম্পাদক মহানগর ল’ কলেজ শাখা।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সেই ৭৫ এর মত প্রিয় নেত্রীর পাশে এখন আবার বেইমান মোস্তাকেরা ভীড় জমিয়েছে তাই আমাদের সকলের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আজ জননেত্রী দেশকে একটি উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, আমরা সবাই ঐক্যবধ্যভাবে তার পাশে থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বাস্তবায়ন করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাঙ্গালী জাতির সৃষ্টি হতনা, তেমনি জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী না হলে বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে বাস্তবায়তি হতনা , অতীতে যারা ক্ষমতায় ছিলেন তারা লুটপাট করে বাংলাদেশ ঝুঁকির মধ্যে রেখে গিয়েছিলেন আর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশের মানুষের জীবনমান উন্নয় করেছেন তাই জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত কে শক্তিশালী করার জন্য বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের অবশ্যই পাশে থাকতে হবে বলে আমি মনে করছি ।

উপদেষ্টা সম্পাদক : মো: রেজাউল ওয়াদুদ উপদেষ্টা সম্পাদক : শহীদুল ইসলাম পাইলট উপদেষ্টা সম্পাদক : আহমেদ আবু জাফর উপদেষ্টা সম্পাদক : মুহাম্মদ আওলাদ হোসেন সম্পাদক : মো: আবু বক্কর তালুকদার ৩৭০/৩,কলেজ রোড,আমতলা,আশকোনা,ঢাক-১২৩০