Thursday , June 27 2019
Home / বিশ্ব সংবাদ

বিশ্ব সংবাদ

ভারতে নারী সাংবাদিককে ধাওয়া করে গুলি

 

অনলাইন ডেস্ক : ভারতে এক নারী সাংবাদিকের গাড়ি ধাওয়া করে গুলি করেছে দুষ্কৃতীরা। শনিবার রাতে পূর্ব দিল্লির অশোক নগরে এ ঘটনা ঘটেছে। খবর এনডিটিভির।
দেশটির পুলিশ জানায়, ঘটনার শিকার ওই সাংবাদিকের নাম মিতালি চান্দোলা। নয়ডায় কাজ করেন তিনি।

ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, রাত তখন প্রায় সাড়ে ১২টা। নিজের গাড়ি চালিয়ে ফিরছিলেন মিতালি। তার গাড়িকে অনুসরণ করছিল আরও একটি গাড়ি। হুট করে সেটা মিতালির গাড়িকে ওভারটেক করে সামনে চলে আসে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ওই গাড়িতে থাকা দুষ্কৃতীরা পর পর দু’টি গুলি চালায়। প্রথম গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলেও দ্বিতীয় গুলিটি গাড়ির উইন্ডশিল্ড ভেদ করে মিতালির হাতে লাগে।

ওই নারী সাংবাদিক পুলিশকে জানিয়েছেন, হামলাকারীদের প্রত্যেকেরই মুখ ঢাকা ছিল। হামলাকারীরা প্রথমে তার গাড়িতে ডিম ছুঁড়ে।

ওই নারী সাংবাদিককে উদ্ধার করে পূর্ব দিল্লির একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, তার অবস্থা স্থিতিশীল।
পুলিশ এ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বলে খবরে বলা হয়েছে।

উত্তর কোরিয়ায় প্রথম সফরে শি জিনপিং

অনলাইন ডেস্ক : চীনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার ৬ বছর পর শি জিনপিং উত্তর কোরিয়ায় প্রথম রাষ্ট্রীয় সফর করছেন।
দুইদিনের সফরে বৃহস্পতিবার তিনি পিয়ংইয়ং পৌঁছেছেন বলে চীনা রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বিবিসি।

উত্তরের শীর্ষ নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৃহস্পতিবারই তার এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে মিলিত হওয়ার কথা।

বেইজিং পিয়ংইয়ংয়ের প্রধান ব্যবসায়িক অংশীদার হলেও ১৪ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম চীনের কোনো প্রেসিডেন্ট উত্তর কোরিয়ায় গেলেন।

এ সফরে শি নিষেধাজ্ঞা জর্জরিত উত্তর কোরিয়ার জন্য বেশকিছু অর্থনৈতিক সহযোগিতা প্রকল্প নিয়ে গেছেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

জাপানে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের এক সপ্তাহ আগে চীনা প্রেসিডেন্টের এ সফরে পিয়ংইয়ং-ওয়াশিংটন সম্পর্কের উত্থান-পতন নিয়েও আলোচনা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

জি-২০ সম্মেলনে শি-র সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতায় আসায় পর থেকে এ নিয়ে ৪ বার চীন সফর করেছেন কিম।

অন্যদিকে ২০০৫ সালে চীনের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট হু জিনতাওয়ের সফরকালে উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন কিমের বাবা কিম জং ইল।

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কার্যক্রমের কারণে দেশটির ওপর ধারাবাহিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জাতিসংঘ। বেইজিং এসব নিষেধাজ্ঞায় সমর্থন দিলেও শি-র এবারের সফর দুই দেশের সম্পর্কের উন্নতিতে ভূমিকা রাখবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

উত্তর কোরিয়ায় চীনা প্রেসিডেন্টের এ সফর ‘বেইজিং-পিয়ংইয়ং সম্পর্কে নতুন অধ্যায় যোগ করবে’ বলে মন্তব্য করেছে চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সিসিটিভি।

নেতৃত্ব বাছাইয়ে প্রথম দফা ভোটে ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন দল

অনলাইন ডেস্ক : প্রথম দফা ভোটের মাধ্যমে ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির সাংসদরা তাদের পরবর্তী শীর্ষ নেতা নির্বাচনের কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন।
বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ হাউস অব কমন্সে গোপন ব্যালটে এ ভোট হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

স্থানীয় সময় দুপুর ১টার কিছুক্ষণ পর এ ভোটের ফল জানা যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিনের ভোটে দলটির শীর্ষ পদের ১০ প্রার্থীর মধ্যে যারা ন্যূনতম ১৭ সহকর্মীর সমর্থন পাবেন না, তারা এ প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বাদ পড়বেন।

প্রার্থীদের সবাই ন্যূনতম ভোটের বাধা টপকাতে পারলে তাদের মধ্য থেকে বাদ পড়বেন সবচেয়ে কম ভোট পাওয়া প্রতিদ্বন্দ্বী।

অবশিষ্ট প্রার্থীদের নিয়ে আগামী সপ্তাহে ফের ভোট হবে; এভাবে কয়েক দিনের সিরিজ ভোটের মাধ্যমে টোরি এমপিরা চূড়ান্ত দুই প্রতিদ্বন্দ্বীকে নির্বাচিত করবে।

ওই দুই জনের মধ্যে দলের পরবর্তী নেতা কে হবেন, পোস্টাল ব্যালটের মাধ্যমে সে সিদ্ধান্ত নিবেন দলের নিবন্ধিত সদস্যরা।

জুলাইয়ের শেষদিকে ফলাফল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচিত নেতা ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ পদে বসার পাশাপাশি ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে-র স্থলাভিষিক্ত হবেন।

সাংসদদের সমর্থন বিচারে বুধবার থেকে প্রচারাভিযান শুরু করা বরিস জনসনের পাল্লাই সবচেয়ে ভারী বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সাবেক এ পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার নির্বাচনী প্রচারে অক্টোবরের মধ্যেই যুক্তরাজ্যকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বের করে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

কী করে এই পদক্ষেপ কার্যকর করবেন, সে সম্বন্ধে বিস্তারিত না জানালেও ‘চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিট’ তার লক্ষ্য নয় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার প্রচার শুরু করা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ জনসনকে ‘গতকালের খবর’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

“আজ আমাদের দরকার আগামীর নেতা। দরকার নেই পুরনো ধ্যানধারণার একই লোকগুলোকে, প্রয়োজন নতুন প্রজন্ম, নতুন আলোচ্যবিষয়,” বলেছেন তিনি।

বরিসের পাশাপাশি সাংসদের পর্যাপ্ত সমর্থন নিয়ে জাভিদ, গোভ, ডমিনিক রাব ও জেরমি হান্ট সহজেই দ্বিতীয় দফার ভোটে পৌঁছাবেন বলে অনুমান করা হচ্ছে।

বাকি ৫ প্রার্থী- ম্যাট হ্যানকক, রোরি স্টুয়ার্ট, আন্দ্রিয়া লিডসম, মার্ক হার্পার ও এস্টার ম্যাকভেইও নিজেদের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রাখা ও সুযোগ কাজে লাগানোর আশা করছেন।

হংকংয়ে পুলিশ-বিক্ষোভকারী সংঘর্ষ

অনলাইন ডেস্ক : বিচারের জন্য লোকজনকে চীনের মূলভূখণ্ডে পাঠানোর সুযোগ রেখে আনা বহিঃসমর্পণ বিলের বিরুদ্ধে হংকংয়ের প্রতিবাদকারীদের বিক্ষোভ কর্মসূচি সহিংসতায় রূপ নিয়েছে।
বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দিতে পুলিশ তাদের ওপর রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে, এর পাল্টায় প্রধান প্রধান সড়ক ও সরকারি গুরুত্বপূর্ণ ভবন অবরোধ করে রাখা বিক্ষোভকারীরাও পুলিশের দিকে ইট-পাথর ছুড়ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

লাখো মানুষের প্রতিবাদের মধ্যেও হংকংয়ের বেইজিংপন্থি সরকার বহিঃসমর্পণ বিল নিয়ে অগ্রসর হওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

বুধবার বিলটি নিয়ে আইন পরিষদে দ্বিতীয় দফা বিতর্ক হওয়ার কথা থাকলেও বিক্ষোভের মুখে ওই বিতর্ক স্থগিত করা হয়েছে।

বিতর্কটির নতুন সময়সীমা পরে সদস্যদের জানিয়ে দেয়া হবে, বলেছে আইন পরিষদে।

স্বায়ত্তশাসিত হংকংয়ের আইন পরিষদে আগামী ২০ জুন বিলটি নিয়ে চূড়ান্ত ভোটাভুটি হওয়ার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো।

বিতর্কিত ওই বিলের দ্বিতীয় দফা বিতর্কের আগে বুধবার ভোররাত থেকেই বিক্ষোভকারীরা হংকংয়ের প্রধান প্রধান সড়ক ও সরকারি ভবনের আশপাশে অবস্থান নিয়ে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ দেখাচ্ছিল।

একদল বিক্ষোভকারী সরকারি একটি ভবনে ঢুকে পড়ার চেষ্টা চালালে পুলিশ তাদের দিকে কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছোড়া শুরু করে। এরপর থেকেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশের এক কর্মকর্তা আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে পুলিশের জলকামানের হাত থেকে বাঁচতে বিক্ষোভকারীদের ছাতা ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

সংঘর্ষস্থলের দিকে বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সকে ছুটতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের এ সংঘর্ষকে ‘দাঙ্গা’ হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেছেন পুলিশ কমিশনার স্টিফেন লো ওয়াই-চুং।

এ ধরণের অপরাধে দায়ীদের ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান আছে বলেও তিনি সতর্ক করেছেন, জানিয়েছে সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

পুলিশের বেঁধে দেওয়া নিরাপত্তা রেখা অতিক্রম করায় বিক্ষোভকারীদের ওপর অস্ত্র ব্যবহার করা ছাড়া উপায় ছিল না বলে জানিয়েছেন স্টিফেন।

“আমরা এ ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণের নিন্দা জানাচ্ছি। আপনার মত প্রকাশে নিরপরাধ মানুষকে আঘাতের মুখে ফেলার কোনো দরকার নেই,” বলেছেন তিনি।

কালো মুখোশ ও দস্তানা পরা এক তরুণ বিক্ষোভকারী অবশ্য সংঘর্ষের আগেই ‘বিলটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত আমরা সরছি না’ বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন।

২২ বছর আগে হংকংকে চীনের কাছে হস্তান্তরের সময় যুক্তরাজ্য শহরটির স্বায়ত্তশাসন ও স্বাধীনতা, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা অটুট রাখার প্রতিশ্রুতি আদায় করে নিয়েছিল।

হংকংয়ের কারণেই চীনকে ‘এক দেশ, দুই ব্যবস্থাপনার’ নীতিতে চলতে হচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে নিহত ৪


দলীয় পতাকা খোলাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রতিনিধিত্বশীল ছবি: জি নিউজ

অনলাইন ডেস্ক : ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের সঙ্গে বিজেপি কর্মীদের সংঘর্ষে অন্তত চার জন নিহত হয়েছেন।
শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার দিকে জেলার সন্দেশখালি এলাকার ন্যাজাটে দলীয় পতাকা খোলাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয় বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

সংঘর্ষের শুরুতে বিজেপি কর্মীরা কায়েম মোল্লা নামের ২৬ বছর বয়সী এক তৃণমূল কর্মীকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করে বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। নিহত কায়েম তাদের দলের সমর্থক বলে জানিয়েছেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি ও রাজ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

তৃণমূল কর্মীদের গুলিতে তাদের দলের পাঁচ কর্মী নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। নিহতদের মধ্যে তিন জনের মৃতদেহ পাওয়া গেছে ও বাকি দু’জনের মৃতদেহ পুলিশ সরিয়ে ফেলেছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

নিহত বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সুজিত মণ্ডল, তপন মণ্ডল ও সুকান্ত মণ্ডলের লাশ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া তাদের চার কর্মী নিখোঁজ রয়েছেন এবং তাদের মধ্যে শঙ্কর মণ্ডল ও দেবদাস মণ্ডল নামে দু’জন নিহত হয়েছেন, এমন খবর তারা পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন বসু।

নিহতের সংখ্যা কম দেখাতে পুলিশ ওই দু’জনের ‘লাশ গুম করার চেষ্টা করছে’ বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

অপরদিকে তৃণমূল নেতা মল্লিক জানিয়েছেন, তাদের কর্মী কায়েম মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন।

“বিজেপির হার্মাদরা তাকে মেরেছে। মাথায় গুলি করেছে। বিজেপি যদি মারার রাজনীতি শুরু করে আমরাও ছাড়বো না,” তিনি এমনটিই বলেছেন বলে প্রকাশিত উদ্ধৃতিতে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

সন্ধ্যায় সন্দেশখালিতে তৃণমূলের বুথ কমিটির বৈঠক হচ্ছিল। যে পার্টি অফিসে এ বৈঠক হচ্ছিল সেখানে বিজেপির দলীয় পতাকা লাগানো ছিল। তৃণমূল কর্মীরা বিজেপির পতাকা খুলে তৃণমূলের পতাকা লাগানোর চেষ্টা করার সময় বিজেপি কর্মীরা বাধা দেয়।

এ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে বচসার সময় একটি গুলি এসে কায়েমের গায়ে লাগে বলে জানিয়েছেন মল্লিক। এর পরই দুপক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বেধে যায়।

সংঘর্ষে চার জন নিহত হওয়ার পাশাপশি উভয় দলের বেশ কয়েক জন কর্মীও আহত হয়েছেন।

পরিস্থিতি জানাতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন রাজ্য বিজেপির নেতা মুকুল রায়। সংঘর্ষের এ ঘটনার জন্য তিনি তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দায়ী করেছেন।

সদ্য সমাপ্ত ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিম বঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। রাজ্যর ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ১৮টি নিজেদের অধিকারে নিয়েছে বিজেপি, অপরদিকে তৃণমূল পায় ২২টি আসন। এর আগে ২০১৪ সালের নির্বাচনে রাজ্যের লোকসভা আসনগুলোর মধ্যে ৩৪টিতে জয় পেয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস, আর বিজেপি জিতেছিল মাত্র দুইটি আসনে।

উপদেষ্টা সম্পাদক : মো: রেজাউল ওয়াদুদ উপদেষ্টা সম্পাদক : শহীদুল ইসলাম পাইলট উপদেষ্টা সম্পাদক : আহমেদ আবু জাফর উপদেষ্টা সম্পাদক : মুহাম্মদ আওলাদ হোসেন সম্পাদক : মো: আবু বক্কর তালুকদার ৩৭০/৩,কলেজ রোড,আমতলা,আশকোনা,ঢাক-১২৩০