loading...
Home / মানবাধিকার / উড়াল সড়কের নিচে দখল বাণিজ্য

উড়াল সড়কের নিচে দখল বাণিজ্য

উড়াল সড়কের নিচে দখল বাণিজ্য

রতন বালো : কৌশলে দখল হয়ে যাচ্ছে রাজধানীর ফ্লাইওভারের (উড়াল সড়ক) নিচের জায়গা। খালি জায়গায় চলছে মসজিদ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের দখল বাণিজ্য। এছাড়া ভাতের হোটেল, ঘোড়ার আস্তাবল, পার্কিং, ইট-পাথরের ব্যবসা এগুলোর সবকিছুরই দেখা মিলবে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারের নিচে। মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার ও কুড়িল ফ্লাইওভারের নিচেও গড়ে উঠেছে অবৈধ পার্কিং।

জানা গেছে, দেশের সবচেয়ে বড় মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারটি ২০১৩ সালের ১২ অক্টোবরে যাত্রা শুরু করে। চার লেনবিশিষ্ট এই ফ্লাইওভারটি শনিরআখড়া থেকে বকশীবাজার মোড় পর্যন্ত বিস্তৃত। কিন্তু সংশ্লিষ্টদের তদারকি ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে প্রায় ১১ দশমিক ৭ কিলোমিটার দীর্ঘ এ উড়াল সড়কটির নিচের প্রশস্ত খালি জায়গাগুলো কৌশলে দখল করে নিচ্ছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

অভিযোগ রয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের নাম ব্যবহার করে অনেকেই হানিফ ফ্লাইওভারের নিচে দখল বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছেন। হানিফ ফ্লাইওভার, কুড়িল ফ্লাইওভার ও মগবাজার-মৌচাক তিনটি উড়ালসড়কসহ ঢাকার যানজট নিরসনে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পাঁচটি উড়ালসড়ক আছে। শুধুমাত্র বনানী ফ্লাইওভার ও মহাখালী ফ্লাইওভারের নিচের অংশ ফাঁকা আছে। এ দুটি উড়ালসড়কসহ কুড়িল ফ্লাইওভার ও মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার (একাংশ) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) আওতাধীন। হানিফ ফ্লাইওভার দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) অধীনে।

নগর পরিকল্পনাবিদরা বলেছেন, হানিফ ফ্লাইওভারের নিচের অংশ ঘোড়ার আস্তাবল ও ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) কে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। পাশাপাশি ফ্লাইওভারের নিচে নাগরিকদের জন্য বাগান, ব্যায়ামাগার, গ্রন্থাগার ও বসার স্থান নির্মাণ করতে হবে। যেভাবে বনানী ফ্লাইওভারের নিচের অংশ দৃষ্টিনন্দন করা হয়েছে। এভাবে সব ফ্লাইওভারের নিচে দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ করা হলে রাজাধানীর পরিবেশও খুব ভালো লাগতো বলে নগর পরিকল্পনাবিদরা মনে করছেন।

এদিকে চলতি বছরের শুরুর দিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন এ উড়াল সড়কটির নিচে অবৈধ স্থানাগুলো ভেঙে রাস্তা প্রশস্তকরণের কথা বলেছিলেন। কিন্তু এরপর অনেক দিন হয়ে গেল কিন্তু অবৈধ স্থাপনাগুলো ভাঙার উদ্যোগ নেওয়া হয়নি সিটি করপোরেশন থেকে। এমনকি ফ্লাইওভারের নিচের বিভিন্ন জায়গার ময়লার স্ত‚পগুলো পরিষ্কার করা হয় না। ফলে যথাযথ তদারকি না করায় স্থানীয় প্রভাবশালীরা ফ্লাইওভারের নিচের খালি জায়গা দখল করে কাঁচা বাজার ও গ্যারেজ বসিয়েছেন।

জানা গেছে, এসব কাঁচা বাজার ও গ্যারেজ থেকে ভাড়াও আদায় করছেন একটি মহল। আবার কোথাও কোথাও মসজিদ বানিয়ে কৌশলে জায়গা দখল করে রাখা হচ্ছে। যেসব জায়গা এখনো দখল হয়নি সেসব জায়গা ব্যবহার হচ্ছে ময়লার ভাগার হিসেবে।

সরেজমিন দেখা গেছে, যাত্রাবাড়ী থেকে সায়েদাবাদ হয়ে গুলিস্তানের জয় কালীমন্দির পর্যন্ত ডিভাইডারের খালি জায়গা ডাস্টবিন হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। স্ত‚প করে রাখা হয়েছে ময়লা-আবর্জনা। জায়গা দখল করে ভ্যানের গ্যারেজ ও দোকান বসিয়ে ভাড়া তুলছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

যাত্রাবাড়ী মোড় সংলগ্ন ফ্লাইওভারের নিচে তৈরি হয়েছে ভ্যান গাড়ির গ্যারেজ। এখানে শতাধিক ভ্যান শিকল মাধ্যমে তালা দিয়ে রাখা হয়। যাত্রাবাড়ী মাছের আড়তের সামনে ডিভাইডারের খালি জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে। সেখানে নিয়মিত নামাজ আদায় করছে মুসলি­রা।

ফ্লাইওভারের ডিভাইডারে মসজিদ নির্মাণের বিষয়ে সেখানের ইমাম মাওলানা আরিফ বিল­াহ জানান, ৪ বছর ধরে ডিভাইডারে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে নামাজ পড়াই আমি। মাসালা বুঝেই এটি তৈরি করা হয়েছে। ওই মসজিদে জুমা পড়ানো হয় না, শুধু পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ানো হয়।

অপরদিকে নিমতলী থেকে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত হানিফ ফ্লাইওভারের নিচে ডিভাইডারের চওড়াখালি জায়গার দখল নিয়েছে দোকানপাট ও ভ্যান গাড়ি। যাত্রাবাড়ী থানার সামনেসহ কয়েকটি মিডিয়নের খালি জায়গা পরিণত হয়েছে ময়লার ভাগারে। যাত্রাবাড়ী কাঁচা বাজারের সামনে ফ্লাইওভারের নিচে খালি জায়গায় বসানো হয়েছে অবৈধ কাঁচা বাজার। এর একটু সামনে বসানো হয়েছে রিকশা-ভ্যান গাড়ির গ্যারেজ। প্রভাবশালীদের তৈরি এসব গ্যারেজের সামনে দিয়ে অন্য কোনো ভ্যান প্রবেশ করতে চাইলে প্রতিবার ১০ টাকা করে চাঁদা দিতে হয়।

অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ও মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভার প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী রাজিব খাদেম বলেন, ডিভাইডারের চওড়াখালি জায়গায় কার পার্কিং, দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকার বর্জ্য সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার জন্য সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) প্রকল্প নির্মাণ ও গাছ লাগানোর মাধ্যমে সৌন্দর্য বর্ধনের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে অবৈধভাবে গড়ে উঠা দোকান-পাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি তিনি।

Loading...
loading...

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন



Loading...

About admin

Check Also

বিএনপির রাজনীতিতে শূন্যতা পূরণ হয়নি হারিছ-ইলিয়াসের

সিলেট অফিস : আবুল হারিছ চৌধুরী ও এম. ইলিয়াস আলী। প্রথমজন উধাও, পরেরজন ‘নিখোঁজ’; দীর্ঘ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *