Breaking News
loading...
Home / সমগ্র বাংলাদেশ / বগুড়ায় নির্যাতিত সেই ছাত্রীর জবানবন্দি

বগুড়ায় নির্যাতিত সেই ছাত্রীর জবানবন্দি

বগুড়ায় নির্যাতিত সেই ছাত্রীর জবানবন্দি

বগুড়া সংবাদদাতা : বগুড়ায় কিশোরী ধর্ষণ ও তার মা’কে শারীরিক নির্যাতনের পর চুল কেটে ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনায় নির্যাতনের শিকার সেই ছাত্রী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেলে অতিরিক্ত সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন তিনি। ম্যাজিস্ট্রেট শ্যাম সুন্দর রায় তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এর আগে শিশু আদালতের বিচারক এমদাদুল হক তার জবানবন্দি গ্রহণের অনুমতি দেন।

বগুড়া শিশু আদালতের স্পেশাল পিপি মো. আমানুল্লাহ জানান, নির্যাতিত ওই ছাত্রীকে হাজির করা হয়। বিচারক এমদাদুল হক তার জবানবন্দি গ্রহণের জন্য ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২২ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে আবার তাকে শিশু আদালতে হাজির করলে নিরাপত্তা প্রদানের আবেদন করা হয়। আদালত অসুস্থ ছাত্রীকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ ও তার চিকিৎসার পাশাপাশি পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্থানীয় পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী জানান, ধর্ষিতাকে আদালতে নিয়ে তার জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। পরে তাকে আবারো হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রায় দুই মাস আগে মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তার সঙ্গে শ্রমিক লীগ নেতা তুফানের পরিচয় হয়। এসএসসিতে পাশ করলেও জিপিএ-৫ না পাওয়ায় সে ভালো কলেজে ভর্তি হতে পারছিল না। বিষয়টি জানার পর মতিন তাকে ভালো কলেজে ভর্তি করে দেওয়ার ব্যবস্থা করবে বলে জানায়। এরপর গত ১৭ জুলাই সকালে তুফান তাকে ফোন করে এবং কলেজে ভর্তি সংক্রান্ত কাগজপত্রে স্বাক্ষরের জন্য শহরের চকসুত্রাপারে তার বাড়িতে যেতে বলে। প্রথমে ওই কিশোরী তুফানের বাড়ি যেতে রাজি হয়নি। পরে অবশ্য তার চাপাচাপিতে সে রাজি হয়। তখন তুফান তাকে আনার জন্য গাড়ি পাঠাতে চাইলে সে কাছাকাছি দূরত্ব হওয়ায় পায়ে হেঁটে তার বাড়িতে যেতে চায়। তবে, তুফান তাতে রাজি না হয়ে গাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

ওই কিশোরী অভিযোগ করে, গাড়িতে করে তার যাওয়ার পর তুফান ছাড়া বাড়িতে সে আর কাউকে দেখতে পায়নি। এরপর ঘরের ভেতর নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে তুফান তাকে ধর্ষণ করে। এতে রক্তপাত হলে তুফান তার সহযোগী আতিককে খবর দিলে সে ওষুধ এনে খাইয়ে দেয়। এরপর সে বাড়ি চলে যায়। তুফান রাজনৈতিকভাবে খুব প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে ধর্ষণের বিষয়টি ওই কিশোরী চেপে যায় এমনকি তার মাকেও বলার সাহস পায়নি।

পুলিশ জানায়, ওই কিশোরীর সঙ্গে তুফানের শারীরিক সম্পর্কের কথা জানতে পেরে তার স্ত্রী আশা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং তাকে শায়েস্তা করার পরিকল্পনা করে।

সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী, আশা তার বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ তুফানের সহযোগী ৮/১০জনকে সঙ্গে নিয়ে ২৮ জুলাই শুক্রবার দুপুরে ওই কিশোরীদের বাসায় যায়। এরপর তারা ওই কিশোরী এবং তার মা মুন্নী বেগমকে বাড়ি থেকে বের করে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকির বাড়িতে নিয়ে যায়। ওই কিশোরী অভিযোগ করেছে, নিজ বাড়িতে ঘরের মধ্যে তোলার পর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুমকি ও বোন আশা (তুফানের স্ত্রী) গালিগালাজ করতে করতে তাদের দু’জনের (মা ও মেয়ে) মাথার চুল কেটে দেয়। পরে নাপিত ডেকে এনে ন্যাড়া করে দেওয়া হয়। এরপর আশা এবং তার বোন রুমকিসহ অন্য সন্ত্রাসীরা তাদের বেধড়ক মারপিট করে।

কিশোরী আরও অভিযোগ করে, প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে নির্যাতনের পর তুফানের স্ত্রী আশা ও তার বড় বোন ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুমকি তাদেরকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়ে ২০ মিনিটের মধ্যে বগুড়া শহর ছাড়ার নির্দেশ দেয়। অন্যথায় তাদের আরও খারাপ পরিণতি ভোগ করতে হবে এবং তাদের বিরুদ্ধে থানা কিংবা পুলিশে অভিযোগ করে কোন লাভ হবে না বলেও হুমকি দেয়।
এ মামলায় মূল হোতা তুফানসহ ৮ আসামি রিমান্ডে রয়েছে।

Loading...
loading...

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন



Loading...

About sylhet24 express

Check Also

সিলেটের সুস্মিতাকে বিজয়ী করতে চাই আপনার ভোট

সিলেটের সুস্মিতাকে বিজয়ী করতে চাই আপনার ভোট

সিলেট অফিস :  বাংলাদেশের সর্ব বৃহৎ মিউজিক রিয়্যালিটি শো  ফিজ আপ-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ-২০১৭ সিজন সিক্স এ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *