loading...
Home / স্বাস্থ্য / ডাক্তারদের কর্মবিরতি, দুর্ভোগে রোগীরা

ডাক্তারদের কর্মবিরতি, দুর্ভোগে রোগীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : গতকাল সারাদেশে চিকিৎসকরা প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধসহ কর্মবিরতি পালন করেন। রাজধানীর সেন্ট্রাল হাসপাতালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আফিয়া জাহিনের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ভাংচুর, চিকিৎসকদের ওপর হামলা ও মামলার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালন করেন। এতে করে দুর্ভোগের শিকার হন রোগীরা।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) কেন্দ্রীয় কমিটির ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য জায়গার সরকারি হাসপাতালের ডাক্তাররা ব্যক্তিগত চেম্বারে রোগী দেখা বন্ধ রাখেন। ফলে দেশের অন্যান্য জায়গা থেকে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হন। কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সব ধরণের বেসরকারি ক্লিনিক-হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ব্যক্তিগত চেম্বারে চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকে। শুধু তাই নয় এদিন বেসরকারি ক্লিনিক-হাসপাতালগুলোতে কোনো নতুন রোগী ভর্তি না করানোর পাশাপাশি রিপোর্ট দেওয়াসহ জরুরি সেবাও বন্ধ রাখা হয়।

সাধারণত সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা প্রাপ্তিতে ভোগান্তি এড়াতেই অনেক রোগী ডাক্তারদের ব্যক্তিগত চেম্বারে যান রোগ নিরাময়ে। অনেক ডাক্তার আছেন যাদের স্বাক্ষাতের সময়সূচি ৬ মাস আগে নিতে হয়। তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের লোকজনও নির্দিষ্ট সময় অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে গেলেও ডাক্তারদের অনুপস্থিতিতে ভোগান্তির শিকার হন। এদিকে বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ভর্তি থাকা রোগীদের অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। রাজধানীর মৌচাকে অবস্থিত সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিলেট থেকে চিকিৎসা নিতে আরও রোগী বদরুল আলম বলেন, রোগীদের জিম্মি করে ডাক্তারদের এরকম আন্দোলন কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। দিনশেষে আমরা সবাই মানুষ। আর মানুষের ভেতর যদি মানবতা না থাকে তাহলে অসহায়ভাবে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।

এ ব্যাপারে স্যার সলিমুল­াহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নাক, কান, গলার বিভাগীয় অধ্যাপক ডা. মনি লাল আইচ লিটু আলোকিত সময়কে বলেন, আমরা চাই না দেশে কোনো রোগীর বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হউক। কিন্তু ডাক্তাররাও মানুষ। অনাকাঙ্খিত কোনো ঘটনা ঘটলেই ডাক্তারদের ওপর মামলা-হামলা বন্ধ হউক এটাই আমাদের দাবি।

প্রসঙ্গত, গত ১৮মে রাজধানীর সেন্ট্রাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী আফিয়া জাহিন চৈতির মৃত্যু হয়। এ মৃত্যুর কারণ হিসেবে চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার অভিযোগ আনেন চৈতির স্বজনরা। এ ঘটনায় হাসপাতালে ভাংচুরের পাশাপাশি একুশে পদকপ্রাপ্ত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহসহ সংশ্লিষ্ট অন্য চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। এর প্রতিবাদেই কালো ব্যাচ ধারণ, মানবন্ধন ও দেশব্যাপী প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ রাখার এ কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএমএ কেন্দ্রীয় কমিটি। এ ব্যাপারে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. ইকবাল আর্সনাল আলোকিত সময়কে বলেন, আমরা চাই এ অতি দ্রুত এ ঘটনার একটা সুষ্টু সমাধান হউক। রোগী বা ডাক্তার কারো ভোগান্তিই আমাদের কাম্য নয়।

Loading...
loading...

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন



Loading...

About admin

Check Also

নারীদের হার্ট অ্যাটাকের ৭টি লক্ষণ

নারীদের হার্ট অ্যাটাকের ৭টি লক্ষণ

অনলাইন ডেস্ক : সাধারণত নারীদের হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলো পুরুষদের সঙ্গে সব সময় মেলে না। বিশেষজ্ঞদের এমনই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *